বর্ষাকালে শরীর সুস্থ ও ফিট রাখার উপায় এবং শিশুদের যত্ন

ঋতুর পালা বদলে বর্তমানে চলছে বর্ষাকাল। বর্ষাকালে শরীর সুস্থ ও ফিট রাখার উপায় এবং শিশুদের যত্ন নিয়ে অনেকেই চিন্তিত থাকেন। আপনাদের চিন্তা দূর করতে আজকে আমরা বর্ষাকালে শরীর সুস্থ ও ফিট রাখার উপায় এবং শিশুদের যত্ন নিয়ে হাজির হয়েছি।
বর্ষাকালে শরীর সুস্থ ও ফিট রাখার উপায় এবং শিশুদের যত্ন

বর্ষাকালে খুব সহজেই রোগ-বালাই এর উপদ্রব বৃদ্ধি পায় তাই এই ব্যাপারে শুরু থেকেই সর্তকতা অবলম্বন করা উচিত।

সূচিপত্রঃবর্ষাকালে শরীর সুস্থ ও ফিট রাখার উপায় এবং শিশুদের যত্ন

ভূমিকা

গরমের দাবদাহের পর বর্ষা আসে শস্তির ছোয়া নিয়ে। কিন্তু বর্ষাকালে একটু অসাবধনতায় আপনাকে শারীরিক দিক থেকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে পারে । অল্প কয়েকটি নিয়ম ফলো করলেই আপনি নিজেকে সুস্থ ও ফিট রাখতে পারবেন। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক বর্ষাকালে শরীর সুস্থ এবং ফিট রাখার উপায়গুলো।

বর্ষাকালে শরীর সুস্থ রাখার উপায়

  • বর্ষার সময় বৃষ্টি হবে এটা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার তবে যখন তখন বৃষ্টিতে ভিজা যাবে না। মনে রাখবেন বর্ষাকালে যে সকল রোগ হয় তার অধিকাংশই মূলত বৃষ্টিতে ভিজার ফলে বিশেষ করে জ্বর, বিভিন্ন রকমের নিউমোনিয়া, শ্বাসকষ্ট, হাঁপানি ইত্যাদি।
  •  বর্ষাকালে কিছু পানি বাহিত রোগ হয় যেমন ডায়রিয়া, জন্ডিস, টাইফয়েড ইত্যাদি তাই যেখানে সেখানে পানি পান এবং রাস্তার পাশের খোলা-খাবার গ্রহণ থেকে দূরে থাকতে হবে।
  • বর্ষকালে যেখানে সেখানে পানি জমে ডেঙ্গুর পরিমান বৃদ্ধি পায় তাই বাড়ির পাশে যেন ২-৩ কোন পানি জমে না থাকে সে দিকে খেয়াল রাখবেন।নিয়মিত বাড়ির চারপাশ পরিষ্কার রাখতে হবে এবং ঘর যেন স্যাতস্যাতে না হয়ে পড়ে সেটি লক্ষ রাখবেন।
  • রাস্তায় ময়লা পানি বা নর্দমার পানি থেকে নিজেকে দূরে রাখবেন। ময়লা পানি বা নর্দমার পানিতে প্রচুর রোগ-জীবানু এবং ব্যাকটেরিয়া থাকে এতে করে ছোট বড় নানা রকম চর্ম রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। প্রয়োজনে বর্ষকালে চলাচলের জন্য গামবুট ব্যবহার করতে হবে।
  • নিজের কাছে সবসময় ছাতা বা রেইনকোট রাখতে হবে। যতটা সম্ভব বৃষ্টিতে ভিজা পরিহার করতে হবে।বৃষ্টিতে ভিজে গেলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পোশাক পরিবর্তন করতে হবে। শুকনো কাপড় দিয়ে পুরো শরীর বিশেষ করে মাথা মুছে শুষ্ক করে নিতে হবে।
  •  বৃষ্টিতে ভিজার পর সরাসরি এসি রুমে প্রবেশ করবেন না। নাহলে ঠান্ডা লেঘে জ্ব হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।
  • নিয়মিত বিভিন্ন গরম পানীয় যেমনঃ চা, কফি, স্যুপ ইত্যাদি গ্রহণ করুন। এত করে শরীরের সাথে আবহাওয়ার সামঞ্জস্য বজায় থাকবে এবং শরীর সুস্থ থাকবে।
  • বর্ষাকালে শরীর সুস্থ ভিজা জামা-কাপড়, জুতা ইত্যাদি পরিধান করবেন না। এতে র‌্যাশ হয়ে চর্ম রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।
  • শাক-সবজি, তরকারী, কাচা ফলমূল ইত্যাদি খাবার পূর্বে অবশ্যই পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে নিবেন। ডায়রিয়া, কলেরা মূলত এসকল খাদ্যের মাধ্যমে ছড়ায় তাই যে কোন শাক-সবজি, তরকারী, কাচা ফলমূল খাবার আগে পরিষ্কার করে নিবেন।

বর্ষাকালে শরীর ফিট রাখার উপায়

  1. নিয়মিত হালকা ব্যায়ম করুন। ওয়ার্মআপ, পুশ আপ,সিনআপ ইত্যাদি করলে শরীরে রক্তচলাচল স্বাভাবিক হবে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে।
  2. পর্যাপ্ত পরিমানে পানি পান করতে হবে। নাহলে ডিহাইড্রেশন হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।
  3.  ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করুণ এতে করে জ্বর-সর্দি,কাশি ইত্যাদি কম হবে। পেয়ারা, আমলকি, মাল্টা, লেবু কাওয়ার চেষ্টা করুন।
  4. পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম এই বর্ষায় আপনার শরীরকে ফিট রাখতে ভূমিকা রাখবে। প্রতিদিন ৬-৮ ঘন্টা ঘুম আপনাকে সারাদিনের জন্য ফিট রাখবে এবং আপনার কর্মক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।
  5.  খাবারে লবনের পরিমাণ কমিয়ে দিন এতে করে শরীরের উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকবে।
  6.  বিভিন্ন মৌসুমী ফল যেমনঃ নাশপাতি, আপেল, পেপে, ডালিম ইত্যাদি নিয়মিত গ্রহণ করুন। এতে আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিপাবে এবং আপনার ত্বক ভাল থাকবে। তবে অবশ্যই এসকল ফল খাবার পূর্বে বিশুদ্ধ পানি দিয়ে পরিষ্কার করে নিবেন।

বর্ষাকালে শিশুদের যত্ন

শিশুদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা খুবই কম হয় এবং তাদের শরীর খুব কোমল হওয়ায় তারা নানা রকম রোগ বিশেষ করে চর্ম, হাপাঁনি ,নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত হতে পারে। শিশুদের অন্যান্য সময়ের চেয়ে এই সময়ে এসকল রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভবনা বেশি। তাই-
*শিশুদের সবসময় শুকনো জায়গায় রাখতে হবে।
*স্যাতস্যাতে এবং নোংরা পরিবেশ বর্জন করতে হবে।
*জীবানু নাশক দিয়ে নিয়মিত ঘর মুছবেন।
*বৃষ্টির পানি থেকে শিশুদের দূরে রাখতে হবে।
*শিশুদের গোসলের সময় অবশ্যই গরম পানি ব্যবহার করবেন।
 
*বিশুদ্ধ গরম পানি ফুটিয় জীবাণু মুক্ত করে পান করাবেন।
*বিভিন্ন ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়াবেন। তবে অবশ্যই খাওয়ার পূর্বে দুই হাত পরিষ্কার এবং জীবাণু মুক্ত থাকতে হবে।
*গ্রামাঞ্চলে এ সময় পুকুর, ডোবা, নদীর পানি বৃদ্ধি পায়।সবসময় সাবধান থাকতে হবে যেন পানিবাহীত *কোন রোগ না হয় এবং পানিতে ডুবে কোন দূর্ঘটনা না ঘটে।
*সাপ,ব্যাঙ সহ বিভিন্ন পোকামাকড় এবং বিষাক্ত প্রাণীরা যেন শিশুদের ক্ষতি করতে না পারে সে দিকে লক্ষ রাখবেন।
*ভিজা-কাদা যুক্ত স্থানে শিশুদের খেলা-ধুলা করা হতে বিরত রাখবেন। এসকল স্থানে পিছলে পড়ে গিয়ে আঘাত পাওয়ার সম্ভনা থাকে।

বর্ষাকালে খাদ্যাভাস

বর্ষাকালে শরীর সুস্থ রাখতে খাদ্য গ্রহণে কিছুটা সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। এসময় মানুষ স্বভাবতই কিছুটা অলস হয়ে পড়ে ফলে খাদ্য গ্রহণের পর হজমে কিছুটা সম্যসা হয়। সে জন্য বর্ষাকালে খুব বেশি ভারী খাবার গ্রহন করা উচিত নয়,বেশি মসলা যুক্ত খাবার , রাস্তার পাশের খাবার, যেখানে সেখানে পানি পান ইত্যাদি পরিহার করতে হবে।

পানি এবং তরল জাতীয় খাবার বেশি গ্রহণ করতে হবে।চেষ্টা করতে হবে হালকা কুসুম গরম পানি পান করার। প্রচুর পরিমাণে মৌসুমী ফলমূল এবং ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে ।

লেখকের মতামত

বর্ষাকালে শরীর সুস্থ ও ফিট রাখার উপায় এবং শিশুদের যত্ন খ্যাদ্যাভাস ইত্যাদি সম্পর্কে আমরা জানলাম। আশা করব আমাদের আলোচনা বর্ষাকালে আপনাকে এবং আপনার পরিবারকে সুস্থ ও ফিট রাখত এবং শিশুদের যত্ন নিতে আপনাদের সহায়তা করবে। এরকম আরো প্রয়োজনীয় এবং সময়োপযোগী পোষ্ট নিয়মিত পড়তে আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন। ধন্যবাদ।।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url

ইসলামিক ইনফো বাংলা